পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধে অবস্থিত একটি মহাদেশ, বৃহত্তর ইউরেশিয়ার উত্তর-পশ্চিমাংশ

ইউরোপ একটি মহাদেশ যা বৃহত্তর ইউরেশিয়া মহাদেশীয় ভূখণ্ডের পশ্চিমের উপদ্বীপটি নিয়ে গঠিত। সাধারণভাবে ইউরাল ও ককেসাস পর্বতমালা, ইউরাল নদী, কাস্পিয়ান এবং কৃষ্ণ সাগর-এর জলবিভাজিকা এবং কৃষ্ণ ও এজিয়ান সাগর সংযোগকারী জলপথ ইউরোপকে এশিয়া মহাদেশ থেকে পৃথক করেছে।

ইউরোপের উত্তরে উত্তর মহাসাগর, পশ্চিমে আটলান্টিক মহাসাগর দক্ষিণে ভূমধ্যসাগর এবং দক্ষিণ-পূর্বে কৃষ্ণ সাগর ও সংযুক্ত জলপথ রয়েছে। যদিও ইউরোপের সীমানার ধারণা ধ্রুপদী সভ্যতায় পাওয়া যায়, তা বিধিবহির্ভূত; যেহেতু প্রাথমিকভাবে ভূ-প্রাকৃতিক শব্দ "মহাদেশ"-এ সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক উপাদান অন্তর্ভুক্ত।

ইউরোপ ভূপৃষ্ঠের দ্বারা বিশ্বের দ্বিতীয় ক্ষুদ্রতম মহাদেশ; ১,০১,৮০,০০০ বর্গকিলোমিটার (৩৯,৩০,০০০ মা২) বা ভূপৃষ্ঠের ২% এবং তার স্থলভাগের ৬.৮% জুড়ে রয়েছে। ইউরোপের প্রায় ৫০টি দেশের মধ্যে, রাশিয়া মহাদেশের মোট আয়তনের ৪০% ভাগ নিয়ে এ পর্যন্ত আয়তন এবং জনসংখ্যা উভয়দিক থেকেই বৃহত্তম (যদিও দেশটির ভূভাগ ইউরোপ এবং এশিয়া উভয় অঞ্চলে আছে), অন্যদিকে ভ্যাটিকান সিটি আয়তনে ক্ষুদ্রতম। ৭৩৯–৭৪৩ মিলিয়ন জনসংখ্যা বা বিশ্বের মোট জনসংখ্যার প্রায় ১১% নিয়ে ইউরোপ এশিয়া এবং আফ্রিকার তৃতীয় সবচেয়ে জনবহুল মহাদেশ। সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত মুদ্রা ইউরো।

অঞ্চলসমূহসম্পাদনা

  বলকান (আলবেনিয়া, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা, বুলগেরিয়া, ক্রোয়েশিয়া, কসোভো, ম্যাসিডোনিয়া, মলদোভা, মন্টেনিগ্রো, রোমানিয়া, সার্বিয়া)
  বল্টিক রাষ্ট্রসমূহ (এস্তোনিয়া, লাতভিয়া, লিথুয়ানিয়া)
  বেনেলুক্স (বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস, লুক্সেমবুর্গ)
  ব্রিটেন ও আয়ারল্যান্ড (গার্নসি, আয়ারল্যান্ড, আইল অফ ম্যান, জার্সি (দ্বীপপুঞ্জ), যুক্তরাজ্য)
  ককেসাস (আর্মেনিয়া, আজারবাইজান, জর্জিয়া)
  মধ্য ইউরোপ (অস্ট্রিয়া, চেক প্রজাতন্ত্র, জার্মানি, হাঙ্গেরি, লিশটেনস্টাইন, পোল্যান্ড, স্লোভাকিয়া, স্লোভেনিয়া, সুইজারল্যান্ড)
  ফ্রান্সমোনাকো
  গ্রিস, তুরস্ক, সাইপ্রাসউত্তর সাইপ্রাস
  ইবেরিয়া (এন্ডোরা, জিব্রাল্টার, পর্তুগাল, স্পেন)
  ইতালীয় উপদ্বীপ (ইতালি, মল্টা, সান মারিনো, ভ্যাটিকান সিটি)
  নর্ডীয় রাষ্ট্রসমূহ (ডেনমার্ক, ফারো দ্বীপপুঞ্জ, ফিনল্যান্ড, আইসল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেন)
  রাশিয়া, ইউক্রেন এবং বেলারুশ

পর্যটনসম্পাদনা

বৈশিষ্ট্যসম্পাদনা

যোগাযোগব্যবস্থাসম্পাদনা