মধ্য আফ্রিকা আফ্রিকার একটি অঞ্চল যার পশ্চিমে আটলান্টিক মহাসাগর, পূর্ব আফ্রিকার রিফট উপত্যকা, উত্তরে সহিল সমভূমি, এবং দক্ষিণে জাম্বেজি অববাহিকা।

দেশসমূহসম্পাদনা

 
মধ্য আফ্রিকার অঞ্চল
  অ্যাঙ্গোলা
সাবেক পর্তুগিজ উপনিবেশটি একটি গৃহযুদ্ধের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল। এখন বেশিরভাগ অংশ নিরাপদ, কিন্তু পর্যটকদের উপস্থিত হওয়া আশ্চর্যজনকভাবে ধীর
  ক্যামেরুন
লম্বাটে ত্রিভুজ আকৃতির দেশটি আফ্রিকার পশ্চিম ও মধ্য অঞ্চলকে সংযুক্ত করেছে। কখনো কখনো একে "আফ্রিকার অনুচিত্র" বলা হয়। এখানে বৃষ্টিসমৃদ্ধ বন, সমভূমির মরুভূমি, পাহাড় এবং উচ্চ মালভূমি রয়েছে।
  মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র
দক্ষিণে ঘন জঙ্গলে এবং সহিলীয় উত্তরে আধা শুকনো, খুব অস্থির এই দেশটি পর্যটকদের ভ্রমণের জন্য উত্তম নয়
  গণতান্ত্রিক কঙ্গো প্রজাতন্ত্র
বিশাল, অবিশ্বাস্য প্রাকৃতিক সম্পদ এবং সৌন্দর্যযুক্ত, সাংস্কৃতিকভাবে বিভিন্ন, এবং অত্যন্ত অস্থির এবং বিপজ্জনক
  বিষুবীয় গিনি
সম্ভবত মহাদেশের সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশগুলির মধ্যে একটি, যেখানে বিপুল তেলের সম্পদ সরকার দ্বারা বাজেয়াপ্ত হয়, ভ্রমণে এটি একেবারে নিরাপদ জায়গা নয়, কিন্তু এখানে ভালো সমুদ্র সৈকত, সৈকতে থাকা বার আছে এবং স্থানীয়রা স্পেনীয় ভাষায় কথা বলে
  গ্যাবন
তেল, খনিজ সম্পদ এবং উচ্চ জীব বৈচিত্র্যে সমৃদ্ধ
  কঙ্গো প্রজাতন্ত্র
বিপুল বনসহ ছোট জনসংখ্যার দেশ, ইকো-পর্যটনের বেশ সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু দেশটি ১৯৯০-এর দশকের ভয়ানক যুদ্ধের ভয়াবহতা থেকে সম্পূর্ণরূপে চাঙ্গা হবার চেষ্টা করছে
  সাঁউ তুমি ও প্রিন্সিপি
গিনি উপসাগরের ছোট্ট দ্বীপসমূহ
  দক্ষিণ সুদান
বিশ্বের নবীনতম দেশ, জুলাই ২০১১ সালে প্রতিবেশী সুদানের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়

শহরসমূহসম্পাদনা

 
ব্রাভাজিল থেকে কিনশাসার একটি দৃশ্য, বিশ্বের একমাত্র স্থান যেখানে একটি থেকে অন্য জাতীয় রাজধানী দেখা যায়

জানুনসম্পাদনা

রমজান

রমজান হল ইসলামী বর্ষপঞ্জিকা অনুসারে নবম মাস, যে মাসে বিশ্বব্যাপী মুসলিমগণ ইসলামী উপবাস সাওম পালন করে থাকে। রমজান মাসে রোজাপালন ইসলামের পঞ্চস্তম্ভের মধ্যে তৃতীয়তম। রমজান মাস চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করে ২৯ অথবা ত্রিশ দিনে হয়ে থাকে যা নির্ভরযোগ্য হাদীস দ্বারা প্রমাণিত। এ মাসে প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক মুসলিম ব্যক্তির উপর সাওম পালন ফরয, কিন্তু অসুস্থ, গর্ভবতী, ডায়বেটিক রোগী, ঋতুবর্তী নারীদের ক্ষেত্রে তা শিথিল করা হয়েছে। রোজা বা সাওম হল সুবহে সাদিক থেকে সুর্যাস্ত পর্যন্ত সকল প্রকার পানাহার, পঞ্চইন্দ্রিয়ের দ্বারা গুনাহের কাজ এবং (স্বামী-স্ত্রীর ক্ষেত্রে) যৌনসংগম থেকে বিরত থাকা। এ মাসে মুসলিমগণ অধিক ইবাদত করে থাকেন। কারণ অন্য মাসের তুলনায় এ মাসে ইবাদতের সওয়াব বহুগুণে বাড়িয়ে দেওয়া হয়। এ মাসের লাইলাতুল কদর নামক রাতে কুরআন নাযিল হয়েছিল, যে রাতকে আল্লাহ তাআলা কুরআনে হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম বলেছেন। এ রাতে ইবাদত করলে হাজার মাসের ইবাদতের থেকেও অধিক সওয়াব পাওয়া যায়। রমজান মাসের শেষদিকে শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেলে শাওয়াল মাসের ১ তারিখে মুসলমানগণ ঈদুল-ফিতর পালন করে থাকে যেটি মুসলমানদের দুটি প্রধান ধর্মীয় উৎসবের মধ্যে একটি।

  • ২৪ এপ্রিল – ২৩ মে ২০২০ (১৪৪১ হিজরি)
  • ১৩ এপ্রিল – ১২ মে ২০২১ (১৪৪২ হিজরি)
  • ২ এপ্রিল – ১ মে ২০২২ (১৪৪৩ হিজরি)
  • ২৩ মার্চ – ২০ এপ্রিল ২০২৩ (১৪৪৪ হিজরি)
  • ১১ মার্চ – ৯ এপ্রিল ২০২৪ (১৪৪৫ হিজরি)

আপনি যদি রমজানের সময় মধ্য আফ্রিকা ভ্রমণ করার চিন্তা করে থাকেন, তবে রমজানের সময় ভ্রমণ পড়ে দেখতে পারেন।

যদিও জলবায়ু উল্লেখযোগ্যভাবে গ্রীষ্মমন্ডলীয়, সারা বছর ধরে উষ্ণ থাকে, তবে উত্তর ও দক্ষিণের আরও শুষ্ক সাবর্ণ জলবায়ুসহ কঙ্গো অববাহিকায় মহাদেশের সর্বাধিক বৃষ্টিপাত হয়।

ঘুরে দেখুনসম্পাদনা

প্রধান শহরগুলির বাইরে, মধ্য আফ্রিকার বেশিরভাগের অবকাঠামো ভালো নয়। সড়কের বাইরে এবং সাধারণ বিমানচালনা সাধারণত প্রয়োজন।

আলাপসম্পাদনা

এই অঞ্চলের প্রধান ভাষা নাইজার-কঙ্গো এবং নিলো-সাহারা ভাষা। ফরাসি এবং পর্তুগিজ সবচেয়ে সাধারণ সরকারী ভাষা, এবং প্রায়শই ব্যাপকভাবে বলা কথ্য ভাষা। ইংরেজি সবাই ভালোভাবে জানে না। বাংলা ভাষা একেবারে প্রচলিত নয়।